বাংলাদেশ ‘এ’ দলের বড় সংগ্রহ, ব্যাটিং বিপর্যয়ে এইচপি

নাজমুল হোসেন শান্তর পর সেঞ্চুরির সুযোগ হাতছাড়া করেছেন ইরফান শুক্কুরও। সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ১৫ রান দূরে থাকতে সাজঘরে ফেরেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের কেউ সেভাবে দাঁড়াতে না পারলে ৩৩৯ রানে অল আউট হয় বাংলাদেশ ‘এ’ দল।

ব্যাটিং নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলও। দ্বিতীয় দিন শেষে তাঁদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৪১ রান। তাতে প্রথম ইনিংসে ‘এ’ দলের চেয়ে ২৯৮ রানে পিছিয়ে আকবর আলির দল। এইচপির হয়ে তানজিদ হাসান তামিম ২১ এবং তৌহিদ হৃদয় অপরাজিত রয়েছেন ৫ রানে।

আগের দিনের ৫ উইকেটে ২৬০ রান ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ ‘এ’ দল। ব্যাটিংয়ে নেমে দিনের সপ্তম ওভারেই উইকেট হারায় মোহাম্মদ মিঠুনরা। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তাঁরা। ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিলে এক প্রান্ত আগলে রেখেছিলেন শুক্কুর। দারুণ ব্যাটিং করলেও শেষ পর্যন্ত হাফ সেঞ্চুরির দেখা পাননি বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। ৮৫ রানের ইনিংসটি খেলতে ১০টি চার এবং দুটি ছক্কা মেরেছেন তিনি। সুমন খানের চারটি ও হাসান মুরাদের উইকেট নিলে ৩৩৯ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ ‘এ’ দল।

জবাব দিতে নেমে দ্রুতই তিন উইকেট হারায় এইচপি। তামিম ও পারভেজ হোসেন ইমন মিলে দারুণ শুরু এনে দেয়ার চেষ্টা করলেও সেটা ফলপ্রসূ হয়নি। ৪২ বলে ১২ রান করে ইমন সাজঘরে ফিরলে ভাঙে ২৯ রানের উদ্বোধনী জুটি। তিনে নেমে সুবিধা করতে পারেননি মাহমুদুল হাসান জয়ও। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান ফিরেছেন মাত্র ১ রান করে। শাহাদাত হোসেন দিপুও প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন শূন্য রানে। এরপর হৃদয় ও তামিম মিলে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন। শেষ বিকেলে আর কোন উইকেট না হারালে ৩ উইকেটে ৪১ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করে এইচপি।

অর্থসূচক/এএইচআর

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •