সংক্ষেপে ৩০ কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রায় ৭৭টি প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদের সভা ছিল আজ। এসব সভায় কোম্পানিগুলোর দ্বিতীয় প্রান্তিকের (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুমোদনের পর তা প্রকাশ করা হয়।

কোম্পানি ও ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সময়ে ৩০টি কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদনের তথ্য আমাদের হাতে এসেছে। পাঠকদের সুবিধার্থে সংক্ষেপে এসব কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) এর তথ্য প্রকাশ করা হল।

এছাড়া কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন নিয়ে অর্থসূচক আলাদা আলাদা রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। এসব রিপোর্ট থেকে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে।

কোম্পানিগুলো হলোঃ মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক, মেঘনা পেট, মালেক স্পিনিং, সাইফ পাওয়ারটেক, বসুন্ধরা পেপার মিলস, এডিএন টেলিকম, এসিআই ফর্মুলেশন, বিডিকম অনলাইন, সিলভা ফার্মা, খান ব্রাদার্স, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, স্কয়ার ফার্মা, স্কয়ার টেক্সটাইল, এসিআই, বেক্সিমকো সিন্থেটিক্স, শাইনপুকুর সিরামিক্স, আরামিট গ্রুপ, পদ্মা অয়েল, বিবিএস ক্যাবলস, এনার্জিপ্যাক পাওয়ার, শাশা ডেনিমস, নাহী অ্যালুমিনিয়াম, বিবিএস

নিম্নে কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন দেয়া হলো:-

মেঘনা কনডেন্সড মিল্ক

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৯৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে লোকসান ছিল ২ টাকা ১৯ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৯৮ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৩ টাকা ৯৯৩ পয়সা।

মেঘনা পিইটি

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে  ০.০৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে লোকসান ছিল ০.০৮৯  পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান (ইপিএস) হয়েছে ১৪ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ১৪ পয়সা।

মালেক স্পিনিং

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি কনসুলেটেড আয় হয়েছে  ৬২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪০ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি কনসুলেটেড আয় (ইপিএস) হয়েছে  ১ টাকা ০২ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৬৪ পয়সা।

সাইফ পাওয়ারটেক

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি কনসুলটেড আয় হয়েছে ২৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৩৫ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি কনসুলটেড আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৬ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৯০ পয়সা।

বসুন্ধরা পেপার মিলস

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি  আয় হয়েছে  ৪৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ২০ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৩ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৮৮ পয়সা।

এডিএন টেলিকম

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি  আয় হয়েছে  ৫৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ৪৫ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ২০ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৮৯ পয়সা।

এসিআই ফর্মুলেশন

চলতি হিসাববছরের দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির  কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ২ টাকা ৪৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১ টাকা ১৭ পয়সা।

অন্যদিকে দ্বিতীয় প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১ টাকা ২ পয়সা।

বিডিকম অনলাইন

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ২৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ১৪ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৩ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৩৮ পয়সা।

সিলভা ফার্মা

আলোচ্য সময়ে (অক্টোবর-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি  আয় হয়েছে ২০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে আয় ছিল ২৬ পয়সা।

ছয় মাসে (জুলাই-ডিসেম্বর,২০) কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে  ৫৪ পয়সা। আগের বছর একই সময় ছিল ৫৫ পয়সা।

প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল

চলতি হিসাববছরের দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০)  কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ২ টাকা ৪৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ২ টাকা ৪৯ (রিস্টেটেড) পয়সা।

অন্যদিকে দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১ টাকা ৩২ (রিস্টেটেড) পয়সা।

স্কয়ার ফার্মা

চলতি হিসাববছরের প্রথম দুই প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮ টাকা ৭৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৭ টাকা ৭৭ পয়সা।

অন্যদিকে শুধু দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ইপিএস ৪ হয়েছে ১৮ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৩ টাকা ৭০ পয়সা।

স্কয়ার টেক্সটাইল

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪৩ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ইপিএস হয়েছে ৭৯ টাকা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল  ৮৪ পয়সা।

এসিআই

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ১ টাকা ৬৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৬ টাকা ৩৫ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ১৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছিল ১১ টাকা ৯ পয়সা।

বেক্সিমকো সিনথেটিকস

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ৪৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে লোকসান ছিল ৭২ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৩২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে লোকসান হয়েছিল ১ টাকা ৪০ পয়সা।

শাইনপুকুর সিরামিকস

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ৬ পয়সা।

আরামিট লিমিটেড

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ১ টাকা ৫১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৩৭ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ১৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ১ টাকা ৭ পয়সা।

পদ্মা অয়েল

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ৪ টাকা ৮০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৫ টাকা ৮৬ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১১ টাকা ২০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ১৩ টাকা ৩৫ পয়সা।

বিবিএস ক্যাবল

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ১ টাকা ৬২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ২ টাকা ১৬ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ৪ টাকা ৪৩ পয়সা।

এনার্জিপ্যাক পাওয়ার

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ৪৮ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৮৫ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল ১ টাকা ৭৩ পয়সা

শাশা ডেনিমস

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ৩৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৬৭ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১ টাকা ২ পয়সা।

নাহী অ্যালুমিনিয়াম

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ৫৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৭৯ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ১ টাকা ৫৯ পয়সা।

বিবিএস

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪৭ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ইপিএস হয়েছে ২১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৯৪ পয়সা।

শাহজীবাজার পাওয়ার

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির সমন্বিত শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ১ টাকা ৬৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস ছিল ১ টাকা ২৩ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩ টাকা ৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ২ টাকা ১৮ পয়সা।

আনোয়ার গ্যানভানাইজিং

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৫৪ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি ইপিএস হয়েছে ১ টাকা ৬৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৮৬ পয়সা।

জিপিএইচ ইস্পাত

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ১ টাকা ৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪০ পয়সা।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৭৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ৮২ পয়সা।

পেনিনসুলা চিটাগং

দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ৩০ পয়সা।

চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই’২০-সেপ্টেম্বর’২০) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছিল ২৭ পয়সা। এ হিসেবে দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপি্‌এস) হয়েছে ১৫ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ১৩ পয়সা।

স্যালভো কেমিক্যাল

চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (অক্টোবর’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১০ পয়সা। আগের বছর একই সময়েও ইপিএস ১০ পয়সা ছিল।

অন্যদিকে দুই প্রান্তিক মিলিয়ে (জুলাই’২০-ডিসেম্বর’২০) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে টাকা ৩০ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ২৪ পয়সা।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •